অনুভব:মম আমি কি তা বলেছি???


মিসেস চৌধুরী:তুমি আমাকে দেখে যেরকম react করেছো তাতে তো আমার তাই মনে হয়েছে
অনুভব:মম আমি ওইভাবে বলতে চাই নি।তোমাকে এইসময় এখানে দেখে আমি একটু আশ্চর্য হয়েছিলাম তাই….
মিসেস চৌধুরী:হুম বুজলাম।এবার সরো আমাকে ভিতরে ঢুকতে দাও
অনুভব:মম তুমি তো বলেছিলে যে তুমি কালকে আসবে তাহলে আজকে
মিসেস চৌধুরী:কেনো???আজকে আসাটা কি আমার অপরাধ হয়েছে???
অনুভব:মম আমি কি তা বলেছি???
মিসেস চৌধুরী:তুমি না বললেও আমি বুঝতে পেরেছি
মিতালি:(এই স্যারটা কই গেলো???এখনো আসছে না কেনো???কে এসেছে যে যার সাথে এতোক্ষণ হলো কথা বলছেন???আমি কাপড় চেঞ্জ করে বসে আছি তাও উনি আসছেন না।যাই আমিই নিচে যেয়ে দেখে আসি যে কে এসেছে যার সাথে উনি এতোক্ষণ হলো কথা বলছেন???সিঁড়ি দিয়ে নামতে নামতে দেখি স্যার একজন মহিলার সাথে কথা বলছেন।বুঝলাম না মহিলাটা কে হতে পারে???আরেকটু নিচে যেতেই মহিলাটার মুখ দেখতে পারলাম।উনার মুখ দেখেই আমি হা হয়ে গেলাম)আরে আপনি
*মিতালির কথা শুনে মিসেস চৌধুরী আর অনুভব পিছনে তাকালো*
মিতালি:আপনি সেদিনের হসপিটালের ওই আন্টিটা না যিনি আমার মাকে আমার ব্যাপারে অনেক কিছুই বুঝালেন???
মিসেস চৌধুরী:তার চেয়েও বড় কথা আমি তোমার শাশুড়ি
মিতালি:এ্যা
মিসেস চৌধুরী:হ্যা কেনো কি হয়েছে???
মিতালি:তারমানে সেদিন ওইসব আপনি নাটক করেছেন???হায়রে বাটপারি রে!
অনুভব:এই মিতালি???কি বলছো এসব???
মিতালি:আপনাদের মতো বাটপার আমি এই জীবনে দেখি নাই।মা-ব্যাটার বুদ্ধি দেখে তো আমি কাত হয়ে গেলাম
অনুভব:মিতালি(ধমকের সুরে)চুপ থাকো।আর মম তুমি দাঁড়িয়ে আছো কেনো???যাও বসো
মিসেস চৌধুরী:দাড়াও বসছি।আগে আমি আমার ঘরের লক্ষ্মীর সাথে কথা বলে আসি
অনুভব:কে ঘরেরলক্ষ্মী???
মিসেস চৌধুরী:কেনো তুমি বোঝো না???অবশ্যই আমার মিতালি মা
মিতালি:(মুখ হা করে দাঁড়িয়ে আছি)
মিসেস চৌধুরী:(মিতালির দিকে এগিয়ে গেলাম।তারপর ওর মাথায় হাত দিয়ে বললাম)ভারি মিষ্টি মেয়ে তো তুমি
মিতালি:(বিস্ময় সপ্তম আকাশ ছাড়িয়ে যাচ্ছে এমন মুখভঙ্গি করে দাঁড়িয়ে আছি)
মিসেস চৌধুরী:কি হলো মা???কথা বলছো না কেনো???
মিতালি:না মানে আসলে….
মিসেস চৌধুরী:আচ্ছা তোমাকে কিছু বলতে হবে না।আমিই বলছি।মিতালি আমার না সবসময় একটা মেয়ের খুব শখ ছিল।অনুভব যখন আমার গর্ভে ছিল তখন আমি খুব করে চাইতাম যে আমার প্রথম সন্তান যেন মেয়ে হয়।কিন্তু আমার পোড়া কপাল!মেয়ে তো হলোই না উল্টো অনুভবের মতো একটা অকম্মার ঢেঁকি হলো
মিতালি:(আন্টি যখন উনাকে অকম্মার ঢেঁকি বললেন তখন আমি জাস্ট আমার হাসি আর আটকে রাখতে পারলাম না)হি হি হি
অনুভব:(মম এসব কি বলছে???)
মিসেস চৌধুরী:তারপর তো অনুভবের বাবা মারা যান।তাই আর আমার মেয়ের শখও পূরন হয় না।কিন্তু আমার সেই ইচ্ছাটা আজ যেয়ে পূরণ হয়েছে।আমি তোমার মতোই এমন একটা মিষ্টি পুতুলের ন্যায় মেয়ে চেয়েছিলাম।আল্লাহকে অশেষ ধন্যবাদ যে তিনি আমার ইচ্ছাটা পূরণ করেছেন(এই বলে মিতালির কপালে একটা চুমু দিলাম)
মিতালি:(আন্টির এমন ব্যবহার আমাকে আম্মুর কথা মনে করিয়ে দিল)
মিসেস চৌধুরী:আমি জানি তুমি আমার কাছে অনেক প্রশ্নের উত্তর চাও।আমি অবশ্যই পরে সেগুলোর উত্তর দিব।
মিতালি:ঠিক আছে আন্টি আপনি long journey করে এসেছেন এখন ফ্রেস হয়ে বিশ্রাম নেন।আমি ডিনারের ব্যবস্থা করি
মিসেস চৌধুরী:উঁহু এইভাবে বললে তো শুনবো না
মিতালি:কেনো আন্টি???
মিসেস চৌধুরী:আন্টি বললে তো হবে না।মামনি বলতে হবে।আমার অনেক শখ যে আমার মেয়ে আমাকে মামনি বলে ডাকবে
মিতালি:(হাসিমুখে)ঠিক আছে মামনি তাহলে তাই হবে
মিসেস চৌধুরী:এই তো আমার সোনা মেয়ে
মিতালি:হুম এবার তুমি ফ্রেস হয়ে আসো
মিসেস চৌধুরী:হুম
মিতালি:(মামনিকে আমার খুব ভালো লেগেছে।উনি আসলেই অনেক ভালো।উনাকে আমার কেমন যেন আপন আপন মনে হচ্ছে)
অনুভব:(মমের মিতালির সাথে এরকম ব্যাবহারে আমি একদম তাজ্জব বনে চলে গেলাম।মম তো কোনোসময় আমার সাথে এরকম ব্যাবহার করে নি।আর মিতালির সাথে এতো মধুর ব্যাবহার।Feeling jealous😒😒😒)
ডিনার শেষে,
মিতালি:(আমি রান্নাঘরে পানি খাচ্ছিলাম তখন আন্টি আসলো উফস সরি মামনি আসলো।আসলে আজকেই প্রথম মামনি বলেছি তো তাই গোলমাল হয়ে যাচ্ছে।মামনিকে দেখে আমি একটা হাসি দিলাম)
মিসেস চৌধুরী:মিতালি তোমার আর অনুভবের মধ্যে সবকিছু সাভাবিক তো তাই না???(আমি জানি যে ওদের মধ্যে কোনোকিছুই ঠিক নেই তাও আমি মিতালির মুখ থেকে শুনতে চাই যে ও কি বলে)
মিতালি:(মামনির প্রশ্নের উত্তর যাতে আমার না দেওয়া লাগে তার জন্য আমি আবার গ্লাসে পানি ঢেলে পানি খেতে লাগলাম)
মিসেস চৌধুরী:কি হলো বলো??আহা পানি পরে খেয়ো
মিতালি:(হাত দিয়ে ইশারা করে বুঝালাম যে আমার প্রচুর পিপাসা লেগেছে তাই পানি খেতেই হবে)
মিসেস চৌধুরী:আচ্ছা খাও তাহলে।আমি প্রশ্ন করে তুমি পরে উত্তর দিও
মিতালি:(ইশারায় বুঝালাম ঠিক আছে)
মিসেস চৌধুরী:তোমাদের বিয়ের তো ২-৩দিন হয়ে যাচ্ছে তাই না???হানিমুনে কবে যাবে???
মিতালি:(মামনির কথা শুনে আমার চোখ দুইটা বড় হয়ে গেলো।তাও আমি কিছু বললাম না।বরং আবার গ্লাসে পানি ঢেলে ঢকঢক করে খেতে লাগলাম।উনি কি আমার আর উনার সম্পর্কের ব্যাপারে মামনিকে কিছুই বলেন নি)
মিসেস চৌধুরী:আর কত পানি খাবে???আমি আসার পরেই তো দুই গ্লাস খেলে।আর শোনো আমার কিন্তু একটা ইচ্ছা আছে
মিতালি:(হাতের ইশারায় বুঝালাম কি ইচ্ছা)
মিসেস চৌধুরী:আমি কিন্তু এই বছরের শেষের দিকেই আমার নাতি বা নাতনিকে আমার কোলে চাই
মিতালি:(মামনির কথা শুনে আমি বিষম খেয়ে কাশতে শুরু করে দিলাম)
মিসেস চৌধুরী:কি হলো???দেখেশুনে খাবে না তাহলে
মিতালি:আমি ঠিক আছি(কাশতে কাশতে বললাম)
মিসেস চৌধুরী:মিতালি আমি কিন্তু তোমার আর তোমার আর অনুভবের সম্পর্কের ব্যাপারে সবকিছুই জানি।তোমার প্রতিক্রিয়া কেমন হয় তা দেখার জন্যই কিন্তু আমি তোমাকে হানিমুন আর বেবির কথা বলেছি
মিতালি:আসলে মামনি…..
মিসেস চৌধুরী:থাক কিছু বলতে হবে না।তুমি সব কাজ শেষ করে আমার রুমে আসো তোমার সাথে আমার কথা আছে
মিতালি:হুম(হায় হায় বকা দিবে নাকি???)
মিতালি:(মামনির রুমের সামনে গিয়ে)মামনি আসবো??
মিসেস চৌধুরী:আমার রুমে আসার জন্য আবার পারমিশন নেওয়া লাগবে নাকি???
মিতালি:সরি মামনি
মিসেস চৌধুরী:হুম আসো
মিতালি:(আমি ভিতরে গিয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম)
মিসেস চৌধুরী:কি হলো দাঁড়িয়ে আছো কেনো???আসো আমার পাশে বসো
মিতালি:(আমি মামনির পাশে গিয়ে বসলাম)
মিসেস চৌধুরী:দেখো মিতালি….
চলবে